সর্বশেষ

  চুয়াডাঙ্গায় মহিষের শিংয়ে প্রাণ গেল মালিকের   কুবিতে ভর্তির আবেদন ১ সেপ্টেম্বর   তিন দিনের সফরে ঢাকায় ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী   ডেঙ্গুতে পাঁচ জেলায় আরও ৭ জনের মৃত্যু   বিয়ানীবাজার পৌরসভার উদ্যোগে যথাযথ মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালন   বিয়ানীবাজার উপজেলা প্রশাসনের জাতীয় শোক দিবস পালন   ঢাকা মেডিকেল এলাকায় এডিস মশার আবাসস্থল ধ্বংস করলো যুব ইউনিয়ন   এডিস মশা পানিতে ডিম পাড়ে না, জানালেন বিশেষজ্ঞ   রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ছাড়া সবাই রাষ্ট্রের চাকর: হাই কোর্ট   মুসলিমদের গরু কুরবানি দিতে নিষেধ করলেন মন্ত্রী!   বিনা পারিশ্রমিকেই খেলবে জিম্বাবুয়ের খেলোয়াড়রা   সিলেটেও ভয়ঙ্কর রূপ নিচ্ছে ডেঙ্গু, ২৪ ঘন্টায় নতুন করে আক্রান্ত ৫৩ জন   সুপ্রিয় চক্রবর্তী রঞ্জু আর নেই   যার ফোনে ফেরি ছাড়তে দেরি তিনিই করলেন তদন্ত কমিটি!   মুসলিম নির্যাতনের প্রতিবাদ করায় সৌমিত্র-অপর্ণার বিরুদ্ধে দেশদ্রোহের মামলা

কৃষি

ইন্দোনেশিয়ার রাম্বুটান ফলের চাষ এখন সিলেটের বিয়ানীবাজারে

প্রকাশিত : ২০১৬-০৮-০৮ ১৯:৪৭:২৩     আপডেট : ২০১৬-০৮-০৮ ২০:০৮:৪৯

রিপোর্ট : ফারহানুল কবিরঃ



ইন্দোনেশিয়ার রাম্বুটান ফলের চাষ এখন বাংলাদেশে। লিচুর মত দেখতে এই ফলটি একাধারে ফলদ ও ঔষধি হিসাবে সারা পৃথিবীতে পরিচিত। সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার লাউতা ইউনিয়নের জলঢুপ পাটুলি গ্রামের ফয়জুর রহমান ২০০৫ সালে ইন্দোনেশিয়া ভ্রমনের সময় একটি রাম্বুটানের চারা বাংলাদেশে নিয়ে আসেন।


ফয়জুর রহমান জানান, ইন্দোনেশিয়া থেকে একটি রাম্বুটানের চারা এনে বাড়িতে রোপন করি। তারপর কৃষি বিভাগের পরামর্শে গাছটির পরিচর্যা করি। ফলশ্র“তিতে ২০১১ সালে প্রথম এই গাছে ফল ধরে। বর্তমানে আমার বাড়িতে ৯০টি গাছের চারা রয়েছে। তিনি আরো বলেন রাম্বুটান যদি আমার বাড়িতে হয় তবে দেশের সব জায়গায় হবে। আমার ইচ্ছা রাম্বুটানকে সারা দেশে ছড়িয়ে দেয়া।


এ বিষয়ে বিয়ানীবাজার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা পরেশ চন্দ্র দাস বলেন, রাম্বুটান একটি বহুবর্ষজীবী গাছ। এর বহুবিধ গুনাগুন রয়েছে। এটি একাধারে পুষ্টিসমৃদ্ধ ও ঔষধি বৃক্ষ হিসেবে পরিচিত। এতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন ও খনিজ লবন রয়েছে। তিনি আরো বলেন, শরীরের ক্ষতস্থান পূরণ ও জ্বর কমানোর জন্য এ ফল কাজ করে। এ ফল ডায়রিয়া ও আমাশয় প্রতিরোধক এবং কৃমিনাশক হিসেবেও কাজ করে। গাছের বাকলের রস মুখের ক্ষত এবং পাতার রস মাথা ব্যাথা দূর করতে সহায়তা করে এবং শিকরের রস জ্বর কমাতেও সাহায্য করে। বাংলাদেশের মাটি ও আবহাওয়া রাম্বুটান চাষের উপযোগী। এ গাছ রোগ ও পোকামাকড় সহনশীল।
রাম্বুটান গাছ ঠান্ডা অঞ্চলে ও যে সব জায়গায় বেশি বৃষ্টিপাত হয় সেখানে ভাল হয়। উচু এটেল দো-আঁশ ও বেলে দো-আঁশ  মাটিতে রাম্বুটান ভাল হয়। সাধারণত বসন্তের পরপরই শুষ্ক দিনে রাম্বুটানের ফুল আসে এবং গ্রীষ্ম-বর্ষায় ফল পাকে। ফুল ফোটার পর ফল পাকতে প্রায় ৩ থেকে ৪ মাস সময় লাগে। ফল পাকলে লালচে রং ধারন করে। রাম্বুটান গাছ বিশ বছর পর্যন্ত ভাল ফল দিয়ে থাকে। তিন বছরের একটা গাছ  থেকে ১৫ থেকে ২০ কেজি, নয় বছরের একটা গাছ থেকে ৫৫ থেকে ২০০ কেজি এবং বিশ বছরের একটা গাছ থেকে ৩০০ থেকে ৪০০ কেজি ফল পাওয়া যায়।

শেয়ার করুন

Print Friendly and PDF


মতামত দিন

Developed By -  IT Lab Solutions Ltd. Helpline - +88 018 4248 5222