সর্বশেষ

  সরকারি ১০১ খাতে দুর্নীতি চিহ্নিত করেছে দুদক   জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের চিন্তাধারা কেন ‘বিপজ্জনক’?   তাসকিনের চোখে জল   রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলে ধর্মঘট শ্রমিকদের নামে মামলা   সব ব্যাংকের চোখ ৭৫ হাজার কোটি টাকায়   গ্রামবাসীর অর্থায়নে শহিদটিল্লা থেকে বড়দেশ রাস্তা সংস্কা্রের কাজ চলছে   শ্রীহট্টের চন্দ্রপুর বিশ্ববিদ্যালয়: এক অনন্য নিদর্শন   ‘ভাত দে, কাজ দে, না হয় হকারদের ফুটপাতে বসতে দে’   উচ্ছেদ করা হবে বিয়ানীবাজারের অস্থায়ী মাছ বাজার   ধারাবাহিক গেলদের চান লারা   বিয়ানীবাজার থেকে ৬ লাখ টাকা ছিনতাই   প্রাথমিকে নারী শিক্ষক প্রার্থীদেরও সর্বনিম্ন যোগ্যতা স্নাতক   কৃষিকাজ ছাড়তে চায় ৬৫ শতাংশ কৃষক   সিলেটসহ সারা দেশে বয়ে যাচ্ছে কালবৈশাখী   ধর্মঘট, হরতাল ও অনশন প্রসঙ্গে সংক্ষিপ্ত কিছু কথা

বিয়ানীবাজার

উচ্ছেদ করা হবে বিয়ানীবাজারের অস্থায়ী মাছ বাজার

প্রকাশিত : ২০১৯-০৪-১০ ১৫:১৩:০৮

রিপোর্ট : নিজস্ব প্রতিবেদক


বিয়ানীবাজার পৌরশহরের অদূরে খশির এলাকায় অবৈধভাবে স্থাপিত মাছবাজার উচ্ছেদের কার্যক্রম শুরু করেছে প্রশাসন। সংশ্লিষ্ট কারো অনুমতি না নিয়ে এরকম বাজার স্থাপন করা বে-আইনী। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে প্রশাসন অস্থায়ী এবং অবৈধ এই মাছবাজার উচ্ছেদে চিঠি-চালাচালি শুরু করেছে। আগামী ১৫দিনের মধ্যে এই বাজারটি উচ্ছেদে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে বলে জানা গেছে। 

এদিকে অবৈধ-অনুমতিবিহীন বাজারের বিদ্যুৎ সংযোগ গত শুক্রবার বিচ্ছিন্ন করে দেয় পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ। উপরিমহলের নির্দেশে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে বিদ্যুৎ কর্মকর্তারা জানান। এই বাজারের মাছ ব্যবসায়ীদের অনুকুলে বরাদ্দ দেয়া ট্রেড লাইসেন্সও অচিরেই বাতিল করা হবে। কুড়ারবাজার ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের জানান, আমি মাত্র ১০-১২জন মাছ ব্যবসায়ীকে ট্রেড লাইসেন্স প্রদান করেছি। প্রশাসন চাইলে এটি যেকোন সময় বাতিল করা হবে। তাছাড়া এই বাজারে আর কোন ব্যবসায়ীকে ট্রেড লাইসেন্স প্রদান করা হবেনা।  

অপরদিকে বিয়ানীবাজার পৌরশহরের মাছ বাজার নিয়ে সৃষ্ট সংকট থেকে উত্তোরণ এবং নিরসনে পৌর মেয়র কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছেন। গত বৃহস্পতিবার রাতে পৌরশহরের মাছ বাজার নিয়ে সৃষ্ট সংকট থেকে উত্তোরণ নিয়ে পৌর কর্তৃপক্ষের নেয়া উদ্যোগের বিষয়টি ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষকে অবহিত করেন পৌর মেয়র আব্দুস শুকুর। পৌরসভার হলরুমে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় তিনি পৌরসভা ও উপজেলা প্রশাসনের নেয়া বিভিন্ন উদ্যোগের বিষয়টি অবহিত করেন। 

সভাপতির বক্তব্যে মেয়র বলেন, মাছ বাজার নিয়ে কাউকে রাজনীতি করতে দেয়া হবেনা। প্রশাসনকে সাথে নিয়ে সব অপশক্তি মোকাবেলা করা হবে। পৌরশহরের সকল কর্মকান্ডে মেয়রের ভূমিকা রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে। এক্ষেত্রে সকল মহলের সহযোগীতা কামনা করে তিনি বলেন, যত্রতত্র মাছ বাজার স্থাপন নিয়ে যারা দিবাস্বপ্ন দেখছেন, তাদের সে স্বপ্ন কখনো পূরণ হবেনা। অবৈধ-অস্থায়ী বাজার অপসারণে প্রশাসন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। 

গত বছর বিয়ানীবাজার পৌরশহরের প্রধান সড়ক থেকে অস্থায়ী মাছ বাজার উচ্ছেদ করা হয়। এর আগে ২০১৫ সালে কিচেন মার্কেট নির্মাণ করতে মাছ বাজার মূল জায়গা থেকে সরানো হয়। ২০১৮ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর মাছ বাজার উচ্ছেদের পর ৩০ সেপ্টেম্বর কুড়ারবাজার ইউনিয়নের আব্দুল¬াহপুর এলাকায় অস্থায়ী বাজার বসান মাছ ব্যবসায়ীরা। সেখানে বাজার এখন চলমান রয়েছে। এদিকে সৃষ্ট জটিলতা নিরসনে কিচেন মার্কেটের পূর্ব দিকে ভাড়া স্থানে মাছ বাজার বসানোর পৌরসভা ও উপজেলা প্রশাসন উদ্যোগ নেয়। মাছ ব্যবসায়ীদের সাথে আলোচনা করে উভয় পক্ষ মত দিলে পৌরসভা জায়গা ভাড়া নেয় এবং দুই পক্ষ একটি চুক্তিতে আসতে সম্মত হয়। পৌরসভার মেয়র আব্দুস শুকুর চুক্তিতে স্বাক্ষর করলেও মৎস্য ব্যবসায়ীদের প্রতিনিধিরা স্বাক্ষর করেননি। পৌরসভা গত দুই মাস থেকে ওই জায়গার ভাড়া বহন করছে।

মত-বিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্যানেল মেয়র ছায়ফুল আলম ঝুনু, কাউন্সিলার নাজিম উদ্দিন, কাউন্সিলার আকছার হোসেন, কাউন্সিলার মিছবাহ উদ্দিন, কাউন্সিলার আব্দুল কাইয়ুম, ব্যবসায়ী মছমন উদ্দিন আহমদ, ব্যবসায়ী আব্দুল মালিক, সবজি ব্যবসায়ী সমিতির একটি প্রতিনিধি দলসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। 

শেয়ার করুন

Print Friendly and PDF


মতামত দিন

Developed By -  IT Lab Solutions Ltd. Helpline - +88 018 4248 5222