আজ সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯ ইং

বিচিত্র খবর

সাত্তার আজাদ

১১ জুলাই, ২০১৯ ২০:৩৬

শ্রীমঙ্গলে তক্ষক উদ্ধার, লাউয়াছড়ায় অবমুক্ত

কেন এই নিরীহ প্রাণীটি পাচার হয় পড়ুন


মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে পাচারকারীদের কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া তক্ষককে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে অবমুক্ত করা হয়েছে। সোমবার রাত ৯টার দিকে কমলগঞ্জের জানকিছয়ার রেসকিউ সেন্টারের সামনে তক্ষকটিকে অবমুক্ত করা হয়।৭ জুলাই সন্ধ্যায় শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ তক্ষক পাচারকারী দলের কাছ থেকে এটি আটক করে। পরদিন আদালতের মাধ্যমে তক্ষকটি বনবিভাগের কাছে আসে। তারা তক্ষকটিকে অবমুক্ত করে। 



প্রশ্ন হল কেন এই নিরীহ প্রাণীটি পাচার হয়ে যাচ্ছে। প্রাণীটির নাম তক্ষক। সিলেটের কক্কা বলা হয়। ঝোপঝাড়ে বা নিরিবিলি স্থানে থাকে। বাংলাদেশ থেকে চীন, সিঙ্গাপুর চলে যাচ্ছে তক্ষক। ডুয়ার্স তথা উত্তরবঙ্গের জঙ্গলে কড়াকড়ির জেরে মালদহকে গ্রিন করিডর বানিয়ে কোটি কোটি ডলারের ব্যবসা করছে তক্ষক পাচারকারীরা। বিএসএফের গোয়েন্দাবাহিনী ও বনদপ্তর সূত্রে এমন তথ্যই মিলেছে। চীনের পরম্পরাগত ওষুধ নির্মাতাদের বিশ্বাস, তক্ষক তথা গেকোর শরীরে চিরযৌবন এবং প্রজনন শক্তিবর্ধক ক্ষমতা থাকে। ফলত গ্রামবাংলার জঙ্গলে টিকিটিকির মতো প্রাণীটি লক্ষ লক্ষ টাকায় চীন, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়াতে বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। প্রায় একই কারণে ভারতের বিভিন্ন এলাকা থেকে কচ্ছপের হাড় বাংলাদেশে পাচার হচ্ছে। 



টিকিটিকির মতো ছোট প্রাণীটি রংবেরঙের দেখতে হয়। অসমিয়া ভাষায় একে তক্ষক বলা হয়। বাংলাতেও সেই নামে পরিচিত। একদা ডুয়ার্সের জঙ্গল থেকে দেদার পাচার হয়ে গিয়েছে এই প্রাণীটি। একে ঘিরে চীন, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর সহ বেশকিছু দেশে অদ্ভুত রহস্যময় কিছু বিশ্বাস জড়িয়ে আছে। চীন দেশে মনে করা হয় গোকো বা তক্ষক ড্রাগন থেকে উৎপন্ন হয়েছে। তাই এতে চিরযৌবন ও প্রজনন ক্ষমতাবর্ধক শক্তি থাকে। চীনের পরাম্পরা চিকিৎসা ব্যবস্থায় তাই গেকোকে ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। 



জিনসেং নামে একটি ঔষধি গাছের সঙ্গে তক্ষককে জুস করে খাওয়া হয়। এই বিশ্বাসের জেরে চীন, সিঙ্গাপুরের মতো দেশে একেকটি পূর্ণবয়স্ক তক্ষক ১০-১৫ লক্ষ টাকায় বিক্রি হয়। বাংলার জঙ্গলে এই তক্ষক প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। সেখান থেকেই এই তক্ষক সংগ্রহ করে মালদহকে করিডর করে চীনে পাঠিয়ে দিচ্ছে পাচারকারীরা। তক্ষক ও কচ্ছপ উভয়ের ক্ষেত্রেই এমন জনবিশ্বাসের কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি মেলেনি।


শেয়ার করূন

আপনার মতামত