সর্বশেষ

  বসন্তের কবিতাগুচ্ছ - সঞ্জয় আচার্য   বিয়ানীবাজারে ছাত্র ইউনিয়নের ভাষা দিবস স্কুল উৎসব সম্পন্ন   ১৯ জানুয়ারী সাংবাদিক মোহাম্মাদ বাসিতের ১০ম মৃত্যুবার্ষিকী   এক বছরে বিশ্বে ধনীরা আরো ধনী হয়েছেন, গরিবরা আরো গরিব   হোলি আর্টিজানে হামলার জন্য ৩৯ লাখ টাকা জোগাড় করেন মামুন   জেলা হাসপাতালের ৪০ শতাংশ চিকিৎসকই অনুপস্থিত : দুদক   বিজ্ঞানী আবেদ চৌধুরীর উদ্ভাবিত ভুট্টা ক্যান্সার প্রতিরোধক!   আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই   বিয়ানীবাজারের আব্দুল্লাপুর সপ্রাবিতে শিক্ষার্থী সংবর্ধনা   ক্ষমতাবলে শিক্ষক হওয়া স্যার, আপনাকেই বলছি!   মাথাপিছু ঋণ ১৭ হাজার টাকা   বিয়ানীবাজার ছাত্র ইউনিয়নের স্কুল উৎসব   উন্নয়ন, দুর্নীতি ও জিডিপি: একসঙ্গে বাড়ার রহস্য কী?   বিশ্বব্যবস্থাঃ পুঁজিবাদ যেভাবে আমাদের মেরে ফেলছে   গোলাপগঞ্জে বাস-সিএনজি অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ।। নিহত ২ আহত ২

আন্তর্জাতিক

সোলিহের শপথে যেতে চান মোদি, ক্ষমতা হস্তান্তরে সংশয়

প্রকাশিত : ২০১৮-০৯-৩০ ১৬:১১:২৮

রিপোর্ট : দিবালোক ডেস্ক

ছবি- সংগৃহীত

তিন বছর আগে মালদ্বীপে যাওয়ার কথা ছিল ভারতের প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির। কিন্তু যেতে পারেননি দেশটির উত্তাল রাজনৈতিক পরিস্থিতির জন্য।এবার সব ঠিক থাকলে মালদ্বীপে নতুন সরকারের শপথগ্রহণের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন মোদি।ভারতের কূটনৈতিক সূত্রের খবর, প্রথম দিনেই মালদ্বীপে উপস্থিত থেকে চীনকে বার্তা দিতে চায় ভারত। তবে এখনও কিছুটা সংশয়ের মেঘ রয়েছে সে দেশে নতুন সরকার গড়ার পথে।-খবর আনন্দবাজারপত্রিকা অনলাইনের।ভোটে হেরে গেলেও বিদায়ী প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন একবার শেষ চেষ্টা করতে পারেন ক্ষমতা আঁকড়ে রাখার। আড়াল থেকে এ কাজে তাকে সাহায্য করতে পারে চীন।বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে যৌথ বিরোধী দল। সূত্রের খবর, ইয়ামিন নির্বাচন কমিশনের কাছে গিয়ে অভিযোগপত্র দাখিল করার পরিকল্পনা করছেন। অভিযোগটি হল- ভোটে ব্যাপক কারচুপি করেছে বিরোধীরা।দেশের গোয়েন্দা বিভাগকে সঙ্গে নিয়ে এ ব্যাপারে একটি রিপোর্টও তৈরি করিয়েছেন ইয়ামিন। সেই রিপোর্টে এ কারচুপির অভিযোগ সাজানো হবে বলে জানা গেছে।ভারত মনে করছে, গোটা বিষয়টিতে আড়ালে সক্রিয় রয়েছে বেইজিং। ইয়ামিন সরকার সরে গেলে সেখানে ভারতের প্রভাব যে বাড়বে, চীন সেটি মেনে নিতে পারছে না। ইতিমধ্যে তারা সেখানে বিপুল লগ্নি করে ফেলেছে।প্রতিরক্ষা তথা সামরিকভাবেও এ দ্বীপরাষ্ট্রকে অনেকটাই মুঠোয় পুরে ফেলতে পেরেছে গত কয়েক বছরে। ফলে ভূকৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ মালদ্বীপে আধিপত্য কায়েম রাখার টক্করে ভারতের কাছে এত সহজে হার মানতে রাজি নয় ড্রাগনের দেশ।কোণঠাসা প্রতিবেশী বলয়ে মালদ্বীপই পারে ভারতকে কিছুটা অক্সিজেন জোগাতে। এ অবস্থায় সরাসরি কিছু করতে না পারলেও মোদি সরকার মালদ্বীপ নিয়ে কোন পথে চলে, এখন সেটিই দেখার।

শেয়ার করুন

Print Friendly and PDF


মতামত দিন

Developed By -  IT Lab Solutions Ltd. Helpline - +88 018 4248 5222